৪র্থ দিন শেষে ১৪১ রানে পিছিয়ে বাংলাদেশ

হ্যামিল্টনের পর ওয়েলিংটনেও নিউজিল্যান্ডের রানের পাহাড়ে চাপা পড়েছে বাংলাদেশ। টাইগাররা যেখানে ২১১ রানে অলআউট সেখানে ৬ উইকেটে ৪৩২ রান তুলে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেছে কিউইরা। ডাবল সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন রস টেইলর। সেঞ্চুরি পেয়েছেন হেনরি নিকোলস।

২২১ রানে পিছিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ৮০ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ। চতুর্থ দিন শেষে আরও ১৪১ রানে পিছিয়ে মাহমুদুল্লার দল।

এর আগে, টিভি ক্যামেরায় ব্যাট উঁচিয়ে ধরেই প্যাভিলিয়নে ফিরেন কিউই ব্যাটসম্যান রস টেইলর। সেঞ্চুরি সংখ্যায় গ্রেট মার্টিন ক্রোকে টেক্কা দিয়েছেন টেইলর। বলের সাথে পাল্লা দিয়ে হাঁকিয়েছেন কেরিয়ারের তৃতীয় ডাবল হান্ড্রেড। তাঁকে অভিবাদন জানাতে উঠে দাঁড়িয়েছে গোটা বেসিন রিজার্ভ।

অথচ চতুর্থ দিনের শুরুর গল্পটা হতে পারতো একেবারেই ভিন্ন। রাহীর করা ইনিংসের চৌদ্দতম ওভারের প্রথম বলেই টেইলরের ক্যাচ ফেলেছেন রিয়াদ। এক বল বাদে সাদমানের হাতেও জীবন পেয়েছেন রস টেইলর। রাহীর পোড়া কপাল। দুই জীবনে আরও ১৮০ রান বোর্ডে তুলে দিয়ে গেছেন টেইলর।

দ্বিতীয় উইকেটে টেইলর-উইলিয়ামসন জুটির যোগান ১৭২ রান। বা কাঁধে চোট নিয়েও মাস্টার ক্ল্যাস কিউই কাপ্তান। তাঁকে ৭৩ রানে ফিরিয়ে চতুর্থ দিনে টাইগারদের প্রথম ব্রেকথ্রু দিয়েছেন স্পিনার তাইজুল ইসলাম।

বেসিন রিজার্ভের গ্রিন টপে যেখানে কিউই পেইসে নাজেহাল টাইগার ব্যাটিং অর্ডার। সেখানেই কি অনায়াসে ব্যাট ঘোরালো ব্ল্যাকক্যাপস টপ অর্ডার। ওভার প্রতি ৫.০৯ গড়ে হ্যানরি নিকলসের সাথে আরও দুইশ ষোল রান যোগ করলেন টেইলর। টেস্টে নিজের পঞ্চম শতক নিকোলাসের।

চা বিরতির পর ৫৭ বলে ৬০ রান। নিকোলাস টেইলর সহ তিন উইকেট হারিয়ে ইনিংসই ঘোষণা করে দিয়েছে দ্য ব্ল্যাক ক্যাপস।

দিনের খেলায় কমকক্ষে ২৩ ওভার ব্যাট করার চ্যালেঞ্জ নিতে পারেননি ইন ফর্ম তামিম ইকবাল। ব্যর্থতার ধরা ধরে রেখে সাজ ঘরে ফিরে এসেছেন মুমিনুল হকও।আবারও শুরু পেয়ে ইনিংস বড় করতে পারলেন না সাদমান। ২১১ রানের লিড টপকাতে গিয়ে শুরুতেই কোমর ভাঙা টিম টাইগার্স। তবে আর কোনও বিপদ ছাড়াই দিনটা পার করেছেন মিঠুন আর সৌম্য সরকার। তবে এখনো সামনে লম্বা পথ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: