‘ভারতের হামলায় উল্লেখযোগ্য ক্ষতি হয়েছে’

ভারতের বিমান হামলায় পাকিস্তান ভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী জয়েশ-ই-মোহাম্মদের প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সংগঠনটির প্রধান মাসুদ আজহারের ছোট ভাই মাওলানা আম্মার এই কথা স্বীকার করেছেন বলে দাবি করেছে ভারত।

টুইটারে ছড়িয়ে পড়া এক ভয়েস রেকর্ডিং যাচাই শেষে ভারতের বিভিন্ন নিরাপত্তা সংস্থার দাবি, এই কণ্ঠ জয়েশ-ই-মোহাম্মদের শীর্ষ নেতা মওলানা আম্মারের। 

রেকর্ডিংয়ে একজনকে বলতে শোনা যায়, ‘জিহাদিদের প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে হামলা হয়েছে। শত্রুরা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। এর জবাবে ভারতের বিরুদ্ধে জিহাদ শুরুরও হুমকি দেয়া হয়।’ এছাড়া ভারতীয় উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমানকে মুক্তি দেয়ায় ইমরান খানের ওপর ক্ষুব্ধ হন ওই ব্যক্তি।

ধারণা করা হচ্ছে, পাকিস্তানে ভারতীয় বিমান হামলার একদিন পর পেশওয়ারে এক ধর্মীয় সমাবেশে ভাষণটি রেকর্ড করা হয়।

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী জয়শ-ই-মোহাম্মদের হামলায় ৪০ ভারতীয় সেনা নিহত হওয়ার ঘটনায় গেল বেশ কিছুদিন ধরে প্রতিবেশী দুই দেশের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এরপর গেল ২৫শে ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের বেশ কয়েকটি এলাকায় জঙ্গিদের ঘাঁটিতে যুদ্ধবিমান থেকে হামলা চালানোর দাবি করে ভারত।

গেল সোমবার রাতে, পাকিস্তানে মোজাফফরাবাদের বেশ কিছু জায়গায় সন্ত্রাসী ঘাঁটিতে ১২টি যুদ্ধবিমান থেকে বোমা হামলা চালানো হয় বলে দাবি করে ভারত। এ বিষয়ে, ভারতের পররাষ্ট্র সচিব সংবাদ সম্মেলনে জানান, ‘ভারতের চালানো বিমান হামলায় পাকিস্তানের তিনশ’ জঙ্গি নিহত এবং বালাকোট, চাকোটি ও মুজাফফরাবাদে জয়েশ-ই-মোহাম্মদের তিনটি ঘাঁটি পুরোপুরি ধ্বংস হয়েছে।’

এর প্রেক্ষিতে পাকিস্তানের দাবি, পাল্টা প্রতিরোধের মুখে পালিয়ে গেছে ভারতীয় যুদ্ধবিমান। ভারত-পাকিস্তানের যুদ্ধাবস্থার মধ্যেই গেল বুধবার ভারতের দু’টি বিমান পাকিস্তানের সীমানায় ঢুকে পড়লে, বিমানটিকে গুলি করে ভূপাতি করে পাকিস্তান। ওই সময় ভারতীয় বিমান বাহিনীর উইং কমান্ডার অভিনন্দনকে আটক করে পাকিস্তান।

%d bloggers like this: