ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনে ভোট বৃহস্পতিবার

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনিসুল হক ও ২১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলরের মৃত্যুতে শূন্য পদে উপ নির্বাচন এবং দুই সিটি কর্পোরেশনে নতুন যুক্ত ৩৬টি সাধারণ ওয়ার্ডে কাউন্সিল পদে ভোটগ্রহণ হবে বৃহস্পতিবার।

এরইমধ্যে সব প্রস্তুতি শেষ করেছে নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনি সরঞ্জাম বিতরণ কার্যক্রম চলছে। সন্ধ্যার মধ্যে সব কেন্দ্রে ব্যালট পেপারসহ নির্বাচনি সরঞ্জাম পৌঁছে যাবে বলে জানিয়েছে ইসি। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলবে এই ভোটগ্রহণ।

ঢাকা উত্তর সিটিতে মোট ভোটার ৩০ লাখ সাড়ে ৩৫ হাজার। ভোটকেন্দ্র ১২৯৫ টি। মেয়র প্রার্থী ৫ জন। সংরক্ষিত ৬টি ওয়ার্ডে ৪৫ জন এবং সাধারণ ১৮টি ওয়ার্ডে ১২৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। অন্যদিকে, ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে ১৮টি ওয়ার্ডে ভোটার প্রায় পাঁচ লাখ। সংরক্ষিত ৬টি ওয়ার্ডে ২৪ জন এবং সাধারণ ১৮টি ওয়ার্ডে ১২৫ জন প্রার্থী লড়ছেন এই ভোটে।

দলীয় প্রতীকে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে উপ নির্বাচনে লড়ছেন পাঁচ প্রার্থী। এর মধ্যে নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আতিকুল ইসলাম, জাতীয় পার্টির প্রার্থী শাফিন আহমেদ লড়ছেন লাঙল প্রতীক নিয়ে। এছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুর রহিম লড়ছেন টেবিল ঘড়ি, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির আনিসুর রহমান দেওয়ানের প্রতীক আম ও প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক পার্টির শাহীন খান বাঘ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ভোট নির্বিঘ্ন করতে রাজধানীতে নিরাপত্তায় থাকছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ৫০ হাজারের বেশি সদস্য। দুই সিটিতে ১৫শ’ ৩০ কেন্দ্রে ভোট গ্রহণের জন্য প্রস্তুত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ঢাকা উত্তর সিটিতে নিরাপত্তায় কাজ করবে পুলিশ, আনসার ভিডিপির ৪৫টি দল, র‌্যাব-এর ২৭টি টিম ও ২৫ প্লাটুন বিজিবি। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন ৪৫ জন। আর দক্ষিণ সিটিতে পুলিশ, আনসার, ভিডিপির ১৫টি ও র‌্যাব-এর ৯টি এবং ৬ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন থাকছে।

এদিকে, কোনো ভোটকেন্দ্রে সহিংসতা হলে প্রয়োজনে ভোট বন্ধ করে দেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন রির্টানিং কর্মকর্তা।

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। তবে, পাবলিক পরীক্ষা থাকলে তা সাধারণ ছুটির বাইরে থাকবে। এদিকে ভোটের দিন নির্বাচনি এলাকার সব ব্যাংক বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

এছাড়া, ২৭শে ফেব্রুয়ারি মধ্যরাত থেকে ২৪ ঘন্টার জন্য যান চলা চলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছেন নির্বাচন কমিশন। তবে, আন্তজেলা সড়কে বাস ও অন্য যানবাহন চলবে। নির্বাচনি এলাকায় মোটরসাইকেল চলাচল পহেলা মার্চ সকাল ৬টা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে।

%d bloggers like this: