ডাকসু নির্বাচনে প্রার্থী ও ভোটারের সর্বোচ্চ বয়স ৩০ বছর

ডাকসু নির্বাচনে একজন প্রার্থীর সর্বোচ্চ বয়স হবে ৩০ বছরে।  এ নির্বাচনের জন্য অনার্স, মাস্টার্স ও নিয়মিত এমফিলের শিক্ষার্থীরা ভোটার ও প্রার্থী হতে পারবেন। আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভায় এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে সন্ধ্যায় সিন্ডিকেট সভা বসে। যাদের বয়স ৩০ বছরের নিচে তারাই ভোটার ও প্রার্থী হওয়ার সুযোগ পাবেন বলে সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। 

তবে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ভোটার হতে পারবেন না। নির্বাচনের ভোট কেন্দ্র হবে প্রতিটি হলে। নির্বাচনি প্রচারণায় লিফলেট হবে সাদা-কালো। সকাল ১০টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত পর্যন্ত প্রচারণা চালানো যাবে।

২৮ বছরের বেশি সময় পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ- ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ১১ই মার্চ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বহুল প্রতীক্ষিত ডাকসু নির্বাচন। ওই দিন সকাল ৮টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত নির্বাচনের ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

 নির্বাচনকে সামনে রেখে ডাকসু’র গঠনতন্ত্র সংশোধন ও পরিমার্জন কমিটি, আচরণবিধি প্রনয়ণ কমিটি এবং ১৫ সদস্যের উপদেষ্টা পরিষদ গঠন করা হয়েছে। প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তাসহ আরও ৫ জন রিটার্নিং কর্মকর্তাও নিয়োগ করা হয়েছে।

গঠনতন্ত্র অনুযায়ী, হল সংসদসহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ-ডাকসু’র নির্বাচন প্রতিবছর হওয়ার কথা। কিন্তু স্বাধীনতার পর মাত্র ছয়বার নির্বাচন হয়েছে। ১৯৯০ সালের ৬ই জুন সবশেষ ডাকসু নির্বাচন হয়। ওই নির্বাচনে বিএনপি নেতা আমানউল্লাহ আমান সহসভাপতি এবং খায়রুল কবির খোকন সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

%d bloggers like this: