ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৩৬ রানে হারিয়ে টাইগারদের সিরিজে সমতা

সাকিবের ঘূর্ণিতে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৩৬ রানে হারিয়েছে বাংলাদেশ। এ জয়ে সিরিজে ১-১ এ সমতা আনলো বাংলাদেশ।

ইভিন লুইসকে সাজঘরে ফিরিয়ে উদ্বোধনী জুটি ভাঙেন আবু হায়দার রনি। ২১২ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ১৮ রানে প্রথম উইকেট হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

১৮ রানে ওপেনার ইভিন লুইসের বিদায়ের পরও নিকোলাস পুরানকে সঙ্গে নিয়ে ব্যাটিং তাণ্ডব চালিয়ে যান শাই হোপ। ওয়ানডে সিরিজে তিন ম্যাচে দুটি সেঞ্চুরি করা ক্যারিবীয় এই ওপেনার শুরু থেকেই একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকাতে থাকেন। ৪ ওভারে ১ উইকেটে ৫২ রান সংগ্রহ করা উইন্ডিজের লাগাম টেনে ধরেন সাকিব ও মিরাজ।

নিজের প্রথম ওভারে বোলিংয়ে এসে ১০ রান দিয়ে নিকোলাস পুরানের উইকেট তুলে নেন সাকিব। ঠিক পরের ওভারে দুর্দান্ত ফর্মে থাকা শাই হোপকে ক্যাচ আউট করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। হঠাৎ করেই বিপাকে পড়ল উইন্ডিজ।

সে বিপদ আর কাটানো হয়নি উইন্ডিজের। ওয়ানডে অধিনায়ক রোভম্যান পাওয়েল চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু অন্যপ্রান্তে শিমরন হেটমায়ার, ড্যারেন ব্রাভো, কার্লোস ব্রাফেট আর ফ্যাবিয়ান অ্যালেনরা তাঁকে সঙ্গ দিতে পারেননি।

১৩৮ রান তুলে পরাজয়ের ক্ষণ গুনতে শুরু করল উইন্ডিজ। একমাত্র পাওয়েল আর নয়ে নামা কিমো পলই একটু চেষ্টা করছিলেন। দুজনই ফিরেছেন মোস্তাফিজুর রহমানের বলে। ৩৩ বলে ফিফটি করা পাওয়েল আউট হয়েছেন পরের বলেই। ১৮তম ওভারে নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে ফিরেছেন পল।

শেষ দুই ওভারে ৩৯ রান তোলার লক্ষ্যটা উইন্ডিজ তাই আর ছুঁতে পারেনি।

উইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজে ফেরার দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে রানের রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ দল। লিটন দাসের ফিফটি এবং সাকিব আল হাসান এবং মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের অপরাজিত ৪২ ও ৪৩ রানে ভর করে ৪ উইকেটে ২১১ রানের পাহাড় গড়েছে বাংলাদেশ।

উদ্বোধনীতে জুটিতে ৪২ রান করা বাংলাদেশ, দ্বিতীয় উইকেটে তুলে নেয় ৬৮ রান। ১ উইকেটে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ১১০ রান, এরপর মাত্র ১০ রানের ব্যবধানে ৩ উইকেট হারিয়ে কোণঠাসা হয়ে পড়ে বাংলাদেশ।

সৌম্য সরকার এবং লিটন দাসরা ৩২ ও ৬০ রান করে করলেও সুবিধা করতে পারেননি মুশফিকুর রহিম। ওপেনার লিটন দাস ও সৌম্য সরকারের ব্যাটে স্কোর বড় হচ্ছে বাংলাদেশের। এরই মধ্যে ২৬ বলে টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে নিজের দ্বিতীয় হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করেছেন লিটন দাস।

তামিম ইকবাল ও লিটন দাসের দুর্দান্ত শুরু পর বাংলাদেশ হারায় প্রথম উইকেট। ১৬ বলে ১৫ রান করে ফাবিয়ান অ্যালেনের বলে শেলডন কোটরেলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন বাঁহাতি ওপেনার তামিম ইকবাল।

এর আগে উইন্ডিজদের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে সমতায় ফেরার ম্যাচে টসে হারে বাংলাদেশ। টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন উইন্ডিজ অধিনায়ক কার্লোস ব্র্যাথওয়েট।

সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে উইন্ডিজের কাছে পাত্তাই পায়নি বাংলাদেশ। সে ম্যাচে ৫৫ বল আর ৮ উইকেট হাতে রেখেই সাকিবদের হারিয়েছে উইন্ডিজ। দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচের আগে অফিসিয়াল মিডিয়া সেশনে অধিনায়কের বদলে কথা বলতে এসেছিলেন বাঁহাতি টপ অর্ডার সৌম্য সরকার।

বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান মনে করেন, আগের ম্যাচের ভুলগুলো না করলে জেতা সম্ভব হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে। সিলেটে প্রথম টি টোয়েন্টি ম্যাচের একাদশ নিয়েই এই ম্যাচে খেলতে নামছে টাইগাররা। অপরিবর্তিত একাদশ উইন্ডিজেরও।

বাংলাদেশ একাদশ : তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সৌম্য সরকার, সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মাহমুদউল্লাহ, আরিফুল হক, মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, মেহেদি হাসান, রুবেল হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান।

উইন্ডিজ একাদশ: এভিন লুইস, শাই হোপ (উইকেটরক্ষক), নিকোলাস পুরান, ড্যারেন ব্রাভো, শিমরন হেটমায়ার, রোভম্যান পাওয়েল, কার্লোস ব্র্যাথওয়েট (অধিনায়ক), কেমো পল, ফ্যাবিয়ান অ্যালেন, ওশানে টমাস, শেলডন কোটরেল।

%d bloggers like this: